খবরের বিস্তারিত...

FB_IMG_1636469718895

ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ মানববন্ধনে বক্তব্য রাখছেন এইচ এম মুজিবুল হক শাকুর

জালানি তেল,ওয়াসার পানি মূল্যবৃদ্ধি ও বাজার নিয়ন্ত্রণ – নজরদারিতে সরকারের নির্লিপ্ততা জনমনে ক্ষোভের সঞ্চার করেছে—-জালানি তেল,পানি সহ নিত্যপণ্য মূল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে ইসলামিক ফ্রন্ট মহানগরের মানববন্ধনে- এইচ এম মুজিবুল হক শাকুর।

 

ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ চট্টগ্রাম মহানগরীর সভাপতি আলহাজ্ব এইচ এম মুজিবুল হক শাকুর বলেছেন- দেশের প্রবৃদ্ধির পারদ উর্ধমূখী এবং উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ বর্ধিষ্ণু হলেও নিম্ন-মধ্যবিত্ত মানুষ কঠিন ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। বিগত ২ বছরের করোনা তান্ডবের অশুভ শিকারে পরিণত হয়ে এমনিতেই সাধারণ মানুষের জীবনে বিরাজ করছে ত্রাহি অবস্থা। তদুপরি কিছুদিন পরপর চাল,ডাল,তেল,চিনিসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যসামগ্রীর মূল্য বৃদ্ধি করা এক ট্র্যাডিশনে পরিণত হয়েছে। যার অশুভ পরিণতির মাশুল গুনতে হয় দরিদ্র মানুষদের। পণ্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ এবং বাজার ব্যবস্থাপনায় সরকারের সংশ্লিষ্ট বিভাগের নির্লিপ্ততায় ব্যবসায়ী দুষ্টচক্র অতি মুনাফার অশুভ প্রতিযোগীতায় মেতে উঠেছে। সরকারের এহেন কান্ডজ্ঞানহীনতার দরুন জনমনে ক্ষোভের সঞ্চার করছে বলে মন্তব্য করে তিনি আরও বলেন- অনিয়ন্ত্রিত পন্যমূল্য বহাল রাখা অবস্থায় পূণরায় জ্বালানি তেল,গ্যাস, পানি ইত্যাকার প্রয়োজনীয় বিষয়াদির মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। যা কখনও একজন দায়িত্বশীল সরকারের কাজ হতে পারে না। জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি করে ইতোমধ্যে মানুষের জীবন-জীবিকায় এক নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এ ঘটনার প্রেক্ষিতে পরিবহন সেক্টরে যে নৈরাজ্যর সৃষ্টি হয়েছে, তাতে জনগণ দিশেহারা। জন দুর্ভোগ ও ভোগান্তি জ্যামিতিক হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধির অজুহাতে মূল্যবৃদ্ধি করা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায় না। কারণ আন্তর্জাতিক বাজারে যখন জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি হয়নি তখন তো এদেশে বৃদ্ধি করা হয়েছিল। তিনি অদ্য ৯ নভেম্বর, মংগলবার বিকাল ৪ টায় ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ চট্টগ্রাম মহানগরের উদ্যোগে চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে জালানি তেল, গ্যাস, পানি সহ নিত্য প্রয়োজনীয় পন্যমুল্য বৃদ্ধির প্রতিবাদে আয়োজিত মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্য রাখছিলেন।ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ চট্টগ্রাম মহানগর সভাপতি আলহাজ্ব এইচ এম মুজিবুল হক শাকুর এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মাওলানা আব্দুর রহিম তৈয়বী, এম মহিউল আলম চৌধুরী, মাওলানা মুহাম্মদ ওয়াহেদ মুরাদ, মুহাম্মদ ইমরান, এম এম মাইনুদ্দীন চৌধুরী হালিম, ডাক্তার মাওলানা হাসমত আলী তাহেরী, মাওলানা মহিউদ্দিন তাহেরি, শাহ্জাদা মাইনুদ্দীন আল হাসানী,সুন্নী দিদার,আনোয়ারুল ইসলাম খান , আহমেদ রেজা, এড, ইদ্রিস মিয়া অভি মাছরুর রহমান, শাহেদুল আলম মুন্না, হাফেজ মুহাম্মদ ফারুক, আবু বক্কর সিদ্দিক, ইসতাকুর আনোয়ার রাহিব, বোরহান উদ্দীন , মুহাম্মদ জাভেদ প্রমুখ।

Comments

comments

Related Post