খবরের বিস্তারিত...

FB_IMG_1601789228027

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ডের আইন পাশ ও বাস্তবায়ন করার দাবী–খাজা আরিফুর রহমান তাহেরি

আক্টো. 04, 2020 সাংগঠনিক খবর

দেশে নারী ও শিশুধর্ষণ বৃদ্ধি ও শিশু বলাৎকারের প্রতিবাদে ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ও ইসলামী ছাত্রসেনা’র মানববন্ধন

ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ডের আইন পাশ ও তা বাস্তবায়ন করতে হবে।
…ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ও ইসলামী ছাত্রসেনা।

বাংলাদেশে বিভিন্ন ধর্মের মানুষের সহাবস্থান থাকলেও ইসলাম ধর্মের অনুসারী শতকরা পঁচানব্বই ভাগ। মসজিদের ইমাম থেকে মাদ্রাসার মোদাররিস সবাই কোরআন হাদীসের আলোকে জীবন পরিচালনার তাগিদ দেন। সপ্তাহের প্রতি শুক্রবার প্রতিটি জুমা মসজিদে হালাল- হারাম, বৈধ-অবৈধ প্রত্যেক বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ আলোচনা হয়। সমাজের সৌন্দর্য, রাষ্ট্রের প্রতি ভালোবাসা, আইনের প্রতি আনুগত্য ইত্যাদি বিষয়ে ওলামায়ে কেরামগণ ধর্মীয় দৃষ্টিকোন থেকে বয়ান দেন। মুসলিম রাষ্ট্রে নারী ও শিশু ধর্ষণ, কোমলমতি শিশুদের প্রতি যৌনলিপ্সা চরিতার্থ করা কোনভাবেই মেনে নেয়া যায়না। একদিকে ছাত্র নামধারী অছাত্ররা সংগঠনের আড়ালে ধর্ষণ করে যাচ্ছে, অন্যদিকে ধর্মীয় লেবাসে পাদ্রী ও নাবালিকাকে ধর্ষণ করছে। আবার একশ্রেণির আলেম কর্তৃক শিশুরা বলাৎকারের স্বীকার হচ্ছে। ধর্ষণের বিচার এদেশে সঠিকভাবে না হওয়ার ফলে প্রতিনিয়ত এ সকল অপকর্ম করে অপরাধীরা পার পেয়ে যাচ্ছে। যা কোনভাবেই কাম্য নয়। ধর্ষণের শাস্তি মৃত্যুদন্ডের আইন পাশ ও তা বাস্তবায়ন না করলে সমাজ ধর্ষণমুক্ত হবেনা।
ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ও ইসলামী ছাত্রসেনা ঢাকা মহানগরের যোথ উদ্যোগে আজ বিকাল ৩.০০ মি. জাতীয় প্রেসক্লাব, ঢাকা এর সামনে “সিলেটের এমসি কলেজে গৃহবধূ ধর্ষন, রাজশাহীর তানোরে আদিবাসী সপ্তম শ্রেণীর কিশোরীকে গির্জার পাদ্রী প্রদীপ কর্তৃক ধর্ষণ সহ সারা দেশে ধর্ষণের ঘটনা বৃদ্ধি ও শিশু বলাৎকারের প্রতিবাদে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ ঢাকা মহানগর সভাপতি জনাব খাজা আরিফুর রহমান তাহেরীর সভাপতিত্বে ও এম এম নাঈম উদ্দিন এর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধনে প্রধান অতিথি ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ এর যুগ্ন মহাসচিব আল্লামা মোশাররফ হোসেন হেলালী উপরোক্ত আলোচনা করেন।

প্রধানবক্তা ইসলামিক ফ্রন্ট বাংলাদেশ এর সাংগঠনিক সচিব এডভোকেট জাহাঙ্গীর আলম রিজভী ও বিশেষ বক্তা এডভোকেট মুহাম্মদ শাহীদুল আলম রিজভী বলেন- দেশকে এগিয়ে নিতে হলে কঠোর আইনের বিকল্প নেই। সরকার একদিকে কর্মক্ষেত্রে নারী-পুরুষের সম অধিকারের কথা বলছে অন্যদিকে নারীদের প্রতি ধর্ষণ ও অত্যাচারের সঠিক বিচার করছেনা। তা হলে সম অধিকারের মানদণ্ড আর কী থাকল। ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড কার্যকর হলে সমাজ থেকে ধর্ষণ নামক এই মহামারী চিরতরে উৎখাত হয়ে যাবে।

মানববন্ধনে অন্যান্যের মধ্যে আরো বক্তব্য রাখেন- অধ্যক্ষ মাওলানা রফিকুল ইসলাম, জনাব নাজমুল হক আখন্দ, সৈয়দ গোলাম হায়দার হাসিব, হাফেজ আলী আকবর। বক্তারা ধর্ষকদের কঠোর শাস্তি ও ধর্ষণের সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদন্ড আইন পাশ করার দাবী জানান।

Comments

comments

Related Post